ভাষা কাকে বলে? – Definition of language in Bengali

0
25

ভাষা কাকে বলে? – Definition of language in Bengali : মানুষ একটি সামাজিক প্রাণী। ভাষা একজন ব্যক্তির সামাজিক জীবনের ভিত্তি। ভাষার অভাবে সামাজিক জীবন কল্পনাও করা যায় না, যার কারণে ভাষার উদ্ভব হয়েছে।ভাষার সংজ্ঞা মানুষকে অন্যান্য প্রাণীর চেয়ে বেশি সংবেদনশীল ও বুদ্ধিমান করেছে। ফলে তার নিজেকে প্রকাশ করার প্রবণতা রয়েছে। একটি সামাজিক প্রাণী হওয়ার কারণে, তিনি প্রতিনিয়ত সমাজের অন্যান্য সদস্যদের সাথে চিন্তাভাবনা এবং অনুভূতি প্রকাশ করেন।

প্রাথমিকভাবে তিনি চিহ্ন বা অস্পষ্ট শব্দ ব্যবহার করতেন। শব্দ গোষ্ঠীর সংমিশ্রণ একটি নির্দিষ্ট বস্তুর প্রতীক হয়ে ওঠে, যা ধীরে ধীরে ভাষার বিকাশের দিকে পরিচালিত করে। ভাষা ভাব প্রকাশের সবচেয়ে সহজ মাধ্যম।

সারা বিশ্বে কয়েক হাজার ভাষা প্রচলিত আছে এবং সবাই কোন না কোন ভাষায় কথা বলে। কিন্তু লক্ষ্য করার মত বিষয় হল – এতো মানুষ এতো ভাষায় কথা বলে, তাঁদের মধ্যে খুব লোক জানে যে – ভাষা কাকে বলে? – What is language in Bengali. চলুন আজ আমি আপনাদের জানাবো ভাষা কাকে বলে? আর্টিকেলটি শেষ পর্যন্ত পড়ার অনুরোধ রইল।

ভাষা কি? – What is language in Bengali

ভাষা হলো মুখে বলা শব্দ ও বাক্য ইত্যাদির সমষ্টি, যার মাধ্যমে মনের ভাব প্রকাশ পায়। একটি ভাষার সমস্ত ধ্বনির প্রতিনিধিত্বমূলক স্বরগুলি একসাথে একটি সম্পূর্ণ ভাষার ধারণা তৈরি করে। প্রকাশিত ধ্বনির সামগ্রিকতা যার সাহায্যে যে কোনো একটি সমাজ বা দেশের মানুষ একে অপরের প্রতি তাদের গোপন অনুভূতি ও চিন্তা প্রকাশ করে।

এ থেকে স্পষ্ট যে, ভাষা হল সামাজিক মানুষের মধ্যে পারস্পরিক অনুভূতি ও ধারণা বিনিময়ের একটি অর্থবহ মাধ্যম।

ভাষা কাকে বলে? – Definition of Language in Bengali

ভাষা কাকে বলে

ভাষার সংজ্ঞা : ভাষা হল সেই মাধ্যম যার সাহায্যে মানুষ কথা, শোনা, লেখা এবং পড়ার মাধ্যমে তাদের চিন্তাভাবনা বা অনুভূতি বিনিময় করে।

অথবা

অন্য কথায় – যার দ্বারা আমরা আমাদের অনুভূতি লিখিতভাবে বা শব্দ আকারে অন্যের কাছে ব্যাখ্যা করতে পারি এবং অন্যের অনুভূতি বুঝতে পারি, তাকে ভাষা বলে।

অথবা

সহজ কথায় – সাধারণভাবে ভাষা হলো মানুষের অর্থপূর্ণ ব্যক্ত বক্তব্য।

ড: শ্যামসুন্দরদাসের মতে – মানুষ এবং মানুষের মধ্যে বস্তু সম্পর্কে তার ইচ্ছা ও মতামত বিনিময় করার জন্য কণ্ঠস্বরের সংকেত প্রকাশ করাকে ভাষা বলে।

ডঃ বাবুরাম সাক্সেনার মতে – যে ধ্বনি-চিহ্নের দ্বারা মানুষ একে অপরের সাথে চিন্তার আদান-প্রদান করে তাকে সমষ্টিগতভাবে ভাষা বলে।

Note : ভাষা পরিবর্তনশীল। সময়ের সাথে সাথে এবং প্রয়োজন অনুসারে ভাষার রূপ পরিবর্তিত হয় এবং ভাষা নতুন রূপ ধারণ করে।

ভাষার গুরুত্ব কি? – What is the importance of language in Bengali

যে কোনো মানুষের জন্য ভাষা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ভাষা ভাব বিনিময়ের প্রধান মাধ্যম। ভাষা ভাব বিনিময়ের সবচেয়ে কার্যকরী মাধ্যম। কথোপকথন থেকে মানব সমাজের সকল কর্মকান্ডে ভাষার প্রয়োজন।

নিচের বিষয়গুলোর মাধ্যমে ভাষার গুরুত্ব সহজেই অনুধাবন করা যায় –

  • ভাষা জ্ঞান অর্জনের মাধ্যম।
  • ভাষা মানব সংস্কৃতি ও সভ্যতার বিকাশের মাধ্যম।
  • ভাষা অর্থনৈতিক উন্নয়নের ভিত্তি।
  • ভাষাবিজ্ঞান বৈজ্ঞানিক বিকাশের ভিত্তি।
  • ভাষা মানুষের বিকাশের মূল ভিত্তি।
  • ভাষাই জাতীয় ঐক্যের ভিত্তি।
  • ভাষা মৌলিক ধারণা সংরক্ষণের একটি মাধ্যম।
  • ভাষা আবেগ প্রকাশের প্রধান মাধ্যম।

ভাষার বৈশিষ্ট্য গুলি কি কি? – What are the features of language in Bengali

  • ভাষা হল শ্রেষ্ঠ আলো।
  • ভাষা সমাজকে একত্রে আবদ্ধ করে।
  • ভাষা সর্বশক্তিমান।
  • ভাষা সর্বব্যাপী।
  • ভাষা হলো বিরাট ও বিশ্বকর্মা।
  • ভাষার প্রবাহ নিরবচ্ছিন্ন।
  • ভাষা একটি ঐতিহ্যবাহী পণ্য।
  • ভাষা একটি সামাজিক বস্তু।
  • ভাষা মানুষের দান।
  • ভাষার রয়েছে কর্তৃত্ব, ঘরতরুত্ব ও হরতত্ব।
  • ভাষা পৈতৃক এবং জন্ম প্রমাণিত নয়।
  • ভাষা যোগাযোগের একটি মাধ্যম।
  • ভাষা একটি অর্জিত সম্পদ।
  • ভাষা অর্জিত হয় অনুকরণ ও অনুশীলনের মাধ্যমে।
  • ভাষা পরিবর্তনশীল।
  • প্রথম পরিবর্তন ঘটে ভাষার কথ্য আকারে।
  • প্রতিটি ভাষার গঠন ভিন্ন।
  • ভাষার স্রোত অনমনীয়তা থেকে সরলতার দিকে যায়।
  • ভাষা সুযোগ থেকে বিচ্ছিন্নতার দিকে চলে যায়।
  • ভাষার কোনো চূড়ান্ত রূপ নেই।
  • ভাষা সামাজিকভাবে স্তরিত।

ভাষা কত প্রকার? – How many types of language in Bengali

ভাষা তিন প্রকার। যথা —

1. কথ্য বা মৌখিক ভাষা

2. লিখিত ভাষা

3. সংকেতিক ভাষা

কথ্য বা মৌখিক ভাষা কাকে বলে?

আমরা যখন কথা বলার মাধ্যমে আমাদের কথা বা ধারণা অন্যদের কাছে পৌঁছে দিই, তখন তাকে মৌখিক ভাষা বলে।

শ্রোতারা আমাদের সামনে থাকলে আমরা কথ্য ভাষা ব্যবহার করি। মৌখিক ভাষা হল ভাষার মৌলিক রূপ এবং এটি প্রাচীনতম। মানুষের জন্মের সাথে সাথে এর জন্ম হয়।

মানুষ জন্মের সাথে সাথেই কথা বলা শুরু করে, এটা শেখার জন্য কোন পরিশ্রমের প্রয়োজন হয় না, নিজে থেকেই শেখে। কথ্য ভাষার মৌলিক একক হল শব্দ এবং শব্দগুলি ধ্বনি থেকে তৈরি হয় যা বাক্যে ব্যবহৃত হয়।

লিখিত ভাষা ভাষা কাকে বলে?

আমরা যখন লেখার মাধ্যমে আমাদের কথা, অনুভূতি ও চিন্তা অন্যের কাছে পৌঁছে দিই, তখন তাকে লিখিত ভাষা বলে।

শ্রোতারা আমাদের সামনে না থাকলে আমরা আমাদের মতামত বা ধারণা প্রকাশ করার জন্য লিখিত ভাষা ব্যবহার করি। লিখিত ভাষা শেখার জন্য প্রচেষ্টা এবং অনুশীলন লাগে।

এটি ভাষার একটি স্থায়ী রূপ যার মাধ্যমে আমরা আমাদের অনুভূতি ও চিন্তাভাবনাকে আগামী প্রজন্মের জন্য সংরক্ষণ করতে পারি। এর মাধ্যমে আমরা জ্ঞান আহরণ করি।

সংকেতিক ভাষা কাকে বলে?

আমরা যখন আমাদের অনুভূতি এবং চিন্তাভাবনা অন্যদের কাছে প্রকাশ করার জন্য চিহ্ন বা অঙ্গভঙ্গি ব্যবহার করি, তখন তাকে সংকেতিক ভাষা বলে।

সাংকেতিক ভাষা ব্যাকরণে অধ্যয়ন করা হয় না। এর মাধ্যমে ছোট শিশু বা বোবা মানুষ তাদের দৃষ্টিভঙ্গি অন্যদের কাছে পৌঁছে দেয়।

উপভাষা কাকে বলে?

একটি উপভাষা একটি ভাষার একটি নির্দিষ্ট রূপকে বোঝায় যা সেই ভাষায় কথা বলার লোকদের মধ্যে একটি ভিন্ন সম্প্রদায় ব্যবহার করে। প্রায়শই ‘উপভাষা’কে একটি ভাষার আঞ্চলিক রূপ বলা হয়, উদাহরণস্বরূপ, ছত্তিশগড়ী, অবধি, হরিয়ানভি, মারোয়ারি, ব্রজভাষা এবং খাদি বলি হিন্দিতে কিছু আঞ্চলিক উপভাষা রয়েছে। বলা হয় ‘উপভাষা’। কখনও কখনও একটি উপভাষাকে উপভাষাও বলা হয়, যদিও শব্দটি প্রমিত ভাষার জন্যও ব্যবহৃত হয়।

ভাষার রূপগুলি কি কি?

  • মূল ভাষা
  • আঞ্চলিক ভাষা
  • ব্যক্তির উদ্ধৃতি
  • অপবাদ বা বিকৃত ভাষা
  • ব্যবসার ভাষা
  • কটু ভাষা
  • কৃত্রিম ভাষা
  • মিশ্র ভাষা
  • প্রমিত ভাষা

ভাষার মাধ্যম গুলি কি কি?

ভাষার মাধ্যম গুলি নিম্নরূপ —

1. অভিব্যক্তির মাধ্যম

ভাষার মাধ্যমে আমরা কেবল আমাদের অনুভূতি, চিন্তাভাবনা, ইচ্ছা এবং আকাঙ্ক্ষা অন্যদের কাছে প্রকাশ করি না বরং অন্যদের দ্বারা প্রকাশিত অনুভূতি, চিন্তাভাবনা এবং আকাঙ্ক্ষাগুলিও গ্রহণ করি।

2. চিন্তার মাধ্যম

কিছু পড়া, কথা বলা এবং শোনার জন্য যথেষ্ট নয়। এটাও খুব গুরুত্বপূর্ণ যে আপনি যা পড়েন, কথা বলেন এবং শুনেন তার ভিত্তিতে আপনার নিজেকে চিন্তা করা উচিত। ভাষা চিন্তার মৌলিক মাধ্যম। ভাষা ছাড়া চিন্তার কোনো অস্তিত্ব নেই এবং ধারণা ছাড়া ভাষার কোনো গুরুত্ব নেই।

3. সংস্কৃতির মাধ্যম

ভাষা ও সংস্কৃতি উভয়ই ঐতিহ্য থেকে উদ্ভূত। তাই দুজনের মধ্যে গভীর সম্পর্ক রয়েছে। যেখানে সমাজের কর্মকাণ্ড দ্বারা সংস্কৃতি গঠিত হয়, সেখানে ভাষাকে সাংস্কৃতিক প্রকাশের ভিত্তি হিসেবে গ্রহণ করা হয়।

4. সাহিত্যের মাধ্যম

সাহিত্য কেবল ভাষার মাধ্যমেই প্রকাশ পায়। সেই ভাষার সাহিত্যই যে কোনো ভাষায় কথা বলা মানুষের জীবনযাপন, নীতি-নৈতিকতা ইত্যাদির চিত্র তুলে ধরে। সাহিত্যের মাধ্যমেই আমরা সামাজিক ও সাংস্কৃতিক জীবনের পরিচয় পাই।

ভাষা এবং উপভাষার মধ্যে পার্থক্য কি?

আমরা ভাষা সম্পর্কে জানতে পেরেছি, ভাষা কী? ভাষা ছাড়াও, এখানে আমরা উপভাষা সম্পর্কেও জানি, উপভাষা কী, ভাষা এবং উপভাষার মধ্যে পার্থক্য কী?

ভাষা বিস্তৃত এলাকা জুড়ে কথ্য এবং লিখিত হয় এবং এই সাহিত্যে রচিত হয়।

যেখানে একটি উপভাষা হল ভাষার একটি প্রাথমিক রূপ যা একটি ছোট জায়গায় স্থানীয় অনুশীলনে ব্যবহৃত হয় যার কোনো লিখিত রূপ বা সাহিত্য নেই। অর্থাৎ, এটি একটি নির্দিষ্ট এলাকায় সাধারণ সামাজিক আচরণে ব্যবহৃত কথোপকথন।

FAQs :

ভারতে কয়টি প্রচলিত ভাষা আছে?

ভারতে 1652 টি প্রচলিত ভাষা আছে।

ভারতের প্রধান ভাষা কয়টি?

ভারতের প্রধান ভাষা হল – 18 টি

ভারতের রাষ্ট্রভাষা কোনটি?

ভারতের রাষ্ট্রভাষা হল – হিন্দি।

ভাষা কয় প্রকার ও কি কি?

ভাষা তিন প্রকার। যথা —

1. কথ্য ভাষা

2. লিখিত ভাষা

3. সংকেতিক ভাষা

উপসংহার

এই পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাদের সবাইকে ধন্যবাদ জানাই। আমাদের এই (ভাষা কাকে বলে? – What is language in Bengali) পোস্টটি যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে দয়াকরে Comment করে আপনার মতামত জানান এবং আপনার প্রিয়জনদের সাথে ভাগ করে নিন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here