Vivo কেন দেশের কোম্পানি? এবং Vivo এর মালিক কে?

0
46

Vivo কেন দেশের কোম্পানি? এবং Vivo এর মালিক কে? : বন্ধুরা, আপনিও যদি Vivo মোবাইল কোম্পানির ব্র্যান্ডের ভক্ত হন এবং Vivo কোম্পানির ফোন ব্যবহার করেন, তাহলে আপনার জানা উচিত এই Vivo কোম্পানি কোন দেশের।

আজকাল সবাই স্মার্টফোন ব্যবহার করে। প্রত্যেকেরই কোনো না কোনো কোম্পানির মোবাইল থাকে। যদিও বিশ্বের অনেক মোবাইল কোম্পানির ব্র্যান্ড আছে যেমন – Samsung, Oppo, iPhone, Redmi, VIVO নামকরা কোম্পানি।

Vivo আমাদের দেশে একটি খুবই জনপ্রিয় মোবাইল। কিন্তু জানেন কি — Vivo কোন দেশের কোম্পানি? এটি কবে থেকে শুরু হয়েছিল এবং Vivo এর মালিক কে? যদি না জানেন তাহলে এই পোস্টটি শেষ পর্যন্ত পড়ুন, এই পোস্টটিতে আমরা Vivo কোন দেশের কোম্পানি এবং Vivo এর মালিক কে? বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি।

Table of Contents

Vivo কোম্পানির পরিচয়

Vivo কেন দেশের কোম্পানি

Vivo কোম্পানি বিশ্বের বৃহত্তম মোবাইল উত্পাদনকারী কোম্পানিগুলির মধ্যে একটি, যা মোবাইলের পাশাপাশি অন্যান্য অনেক পণ্য তৈরি করে, তবে Vivo বেশিরভাগ মোবাইল তৈরির জন্য বিখ্যাত।

Vivo কোম্পানি ভারত ছাড়া 16টি দেশে তার মোবাইল ফোন এবং অন্যান্য পণ্য বিক্রি করে। ভারতে স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা খুব দ্রুত বাড়ছে; অনেক বিদেশী কোম্পানি তাদের নিজস্ব ব্র্যান্ডের স্মার্টফোন ভারতের বাজারে লঞ্চ করছে।

Vivo কোম্পানির ইতিহাস

2009 সালে স্মার্টফোনের জগতে Vivo কোম্পানির প্রবেশের আগে, এই সংস্থাটি শুধুমাত্র সফ্টওয়্যার এবং সফ্টওয়্যার ভিত্তিক পরিষেবাগুলিতে কাজ করত।

2014 সালে, Vivo কোম্পানি ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, মায়ানমার, ফিলিপাইন, থাইল্যান্ড এবং ভিয়েতনামের মতো দেশে মোবাইল বিক্রি শুরু করে।

এর পরে, 2017 সালে, সংস্থাটি রাশিয়া, শ্রীলঙ্কা, তাইওয়ান, হংকং, ব্রুনাই, ম্যাকাও, কম্বোডিয়া, লাওস, বাংলাদেশ, পাকিস্তান এবং নেপালের মতো দেশে তাদের ফোন বিক্রি করেছে। Vivo তার Vivo Y53 এবং Vivo Y65 স্মার্টফোন নেপালে লঞ্চ করেছে।

Vivo 2012 সালে ভারতে তার ব্যবসা শুরু করে। কোম্পানি Vivo X1 লঞ্চ করেছে যা বিশেষ কিছু করতে পারেনি। কিন্তু 2018 সাল থেকে, Vivo-এর স্মার্টফোন এতটাই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে যে লক্ষ লক্ষ মানুষ ভারতে Vivo-এর স্মার্টফোন ব্যবহার করে৷

ভারতে আসল কৃতিত্ব এসেছিল যখন ইন্ডিয়া প্রিমিয়ার লিগ অর্থাৎ IPL 2016 Vivo দ্বারা স্পনসর হয়েছিল। তারপর থেকে এই কোম্পানিটিকে স্মার্টফোন বিক্রির ক্ষেত্রে ভারতের শীর্ষ 5 কোম্পানির মধ্যে একটি হিসাবে বিবেচনা করা হয়।

Vivo 2017 সালের জুন মাসে ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপ, 2018 এবং 2022 এর অফিসিয়াল স্মার্টফোন ব্র্যান্ড হতে ফিফার সাথে একটি স্পনসরশিপ চুক্তিতে প্রবেশ করে। Vivo UEFA ইউরো 2020 এবং 2024 এর অফিসিয়াল অংশীদার হিসাবে UEFA এর সাথে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে এবং এর টাইটেল স্পন্সর হয়েছে।

Vivo কোম্পানি কবে ভারতে আসে?

Vivo কোম্পানির মোবাইলগুলি 2012 সাল থেকে ভারতে বিক্রি হচ্ছে, কিন্তু 2018 সাল থেকে এই কোম্পানিটি ভারতে খুব বিখ্যাত হয়ে ওঠে এবং এই দিনগুলিতে এই কোম্পানিটি ভারতের শীর্ষ 5 ব্র্যান্ডের অন্তর্ভুক্ত।

Vivo কোম্পানি মোবাইল ভারতের একটি জনপ্রিয় স্মার্টফোন বিক্রেতা কোম্পানি। বর্তমানে, ভারতে আরও বেশি লোক Vivo এর ফোন ব্যবহার করে, যার কারণে Vivo ভারতে একটি বড় এবং জনপ্রিয় স্মার্টফোন কোম্পানি হয়ে উঠেছে। এর সবচেয়ে বড় কারণ হল Vivo-এর স্মার্টফোনের গুণমান ভাল থাকা সত্ত্বেও, নতুন বৈশিষ্ট্য এবং কম দামে তাদের ব্যবহারকারীদের জন্য উপলব্ধ করা হয়।

ভারতে Vivo কোম্পানির IMEI আইএমইআই নম্বর নিয়ে বিতর্ক

2020 সালে, মিরাট পুলিশের সাইবার ক্রাইম ইউনিট প্রকাশ করেছে যে ভারতে ব্যবহৃত 13,500 টিরও বেশি Vivo স্মার্টফোন একই IMEI নম্বরে চলছে।

মূলত, IMEI নম্বর হল একটি 15-সংখ্যার কোড যা মোবাইল ডিভাইসের জন্য অনন্য। সাইবার ক্রাইম ইউনিট অপরাধীদের ট্র্যাক করতে এটি ব্যবহার করে। সমস্ত মোবাইল ডিভাইসে একই IMEI নম্বর থাকলে পুলিশ ট্র্যাকিং বাধাগ্রস্ত হতে পারে।

সমস্ত মোবাইল ডিভাইসের একটি অনন্য IMEI নম্বর থাকা প্রয়োজন, এই ধরনের একটি বিবৃতি 2017 সালে ভারতের টেলিকম রেগুলেটরি অথরিটি দ্বারা জারি করা হয়েছিল। অন্যথায় ৩ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে।

এই ধরনের ঘটনার জন্য Vivo এবং এর পরিষেবা কেন্দ্রের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। 24 সেপ্টেম্বর 2019 পর্যন্ত, বিভিন্ন রাজ্যে একই IMEI নম্বর সহ 13,557টি মোবাইল ফোন দেশে কাজ করছিল। কোম্পানির পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

Vivo কোম্পানির মালিক কে?

Vivo কোম্পানি কোন দেশের তা জানার আগে জেনে নেওয়া যাক ভিভো কোম্পানির মালিক কে?। ভিভোর মালিকের নাম হল — “ডুয়ান ইয়ংপিং, শেন ওয়েই”। মোবাইলের পাশাপাশি, এই সংস্থাটি Wi-Fi, মোবাইল সফ্টওয়্যার, অনলাইন পরিষেবা সিস্টেম এবং গ্যাজেটগুলিও তৈরি করে। কোম্পানিটি 2009 সালে শুরু হয়েছিল। এই কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতার নাম “শেন ওয়েই”।

Vivo কোন দেশের কোম্পানি?

আপনারা কি জানেন ভিভো কোন দেশের কোম্পানি? Vivo একটি চীনা কোম্পানি; এই কোম্পানির মূল কোম্পানি হল BBK Electronics. BBK ইলেকট্রনিক্স স্মার্টফোনের পাশাপাশি সফ্টওয়্যার এবং অনলাইন পরিষেবাগুলি ডিজাইন এবং বিকাশ করে। BBK Electronics Vivo মোবাইলের পাশাপাশি Oppo, Realme এবং OnePlus মোবাইল তৈরি করে।

Vivo কোম্পানির সদর দপ্তর কোথায়?

ভিভো কোম্পানির সদর দপ্তর চীনের ডংগুয়ানে। চীন থেকে শুরু হওয়া এই কোম্পানি আজ বিশ্বে তার জাদু ছড়াচ্ছে। এই কোম্পানিটি 2014 সালে এশিয়ার সমস্ত দেশে তাদের ব্যবসা শুরু করে, যার পরে এটি আজকের দিনে এশিয়ার দেশগুলির মধ্যে বৃহত্তম মোবাইল নির্মাতা। কোম্পানিটি বেশিরভাগই তার ক্যামেরা মানের জন্য পরিচিত কিন্তু একই সাথে তারা তাদের পণ্যের গুণমানও উন্নত করেছে। এই কোম্পানিতে ১০ হাজারের বেশি লোক কাজ করছে।

Vivo কি চীনা কোম্পানি? – Vivo কে একটি চীনা কোম্পানি বলা ন্যায়সঙ্গত?

Vivo কি চীনা কোম্পানি? যদিও Vivo কোম্পানির মোবাইল ভারতসহ অন্যান্য দেশে ব্যবসা করছে। Vivo কোম্পানি BBK ইলেকট্রনিক্স একটি সাবসিডিয়ারি কোম্পানি এবং বিবিকে হিসেবে যাত্রা শুরু করে। ইলেকট্রনিক্স একটি চীনা কোম্পানি।

B. B. K. চীনে ইলেকট্রনিক্স যন্ত্রাংশ তৈরিতে সুপরিচিত। একইভাবে ভিভোও একটি চীনা কোম্পানিতে পরিণত হয়েছে। আমার মতে ভিভোকে চাইনিজ কোম্পানি বলা একেবারেই ন্যায্য।

Vivo কোম্পানির CEO কে?

Vivo কোম্পানির মালিক ও CEO হলেন – শেন ওয়েই। ভারতে Vivo এর CEO হলেন – জেরোম চেন। Vivo বিশ্বের সব দেশে তাদের স্মার্টফোন বাজারজাত ও লঞ্চ করার জন্য সিইও নিয়োগ করেছে।

Vivo কোম্পানি কি তৈরী করে?

Vivo কোম্পানির সমস্ত ব্যবহারকারীরা মনে করেন যে এই সংস্থাটি কেবল স্মার্টফোন তৈরি করে তবে এটি মোটেও তা নয়। এই কোম্পানি অনেক করে. আসুন জেনে নেই কোন কোন পণ্য তৈরি করা হয়েছে।

1. মোবাইল

2. সফটওয়্যার

3. গ্যাজেট

4. এয়ার ফোন

5. চার্জার

6. হোম থিয়েটার

7. অনলাইন পরিষেবা

FAQs

Vivo কি ভারতের তৈরি?

Vivo, Realme, OnePlus, iQOO এবং Oppo হল চীনা কোম্পানিগুলোর সদর দফতর ডংগুয়ান, গুয়াংডং (চীন)। যাইহোক, এই সংস্থাগুলির ভারতে স্থানীয়ভাবে মোবাইল একত্রিত করার জন্য উত্পাদন ইউনিট রয়েছে।

Oppo এবং Vivo কি একই কোম্পানি?

হ্যাঁ, BBK ইলেকট্রনিক্স উভয়ই তৈরি করে।

Vivo কোম্পানী কোন দেশের বা Vivo মোবাইল কোন দেশের?

একটি চীনা কোম্পানি; সদর দপ্তর ডংগুয়ান, গুয়াংডং, চীনে অবস্থিত।

Vivo কোম্পানির মালিক কে?

Vivo কোম্পানির মালিক হল —ডুয়ান ইয়ংপিং, শেন ওয়েই।

Vivo কোম্পানির সিইও কে?

Vivo কোম্পানির সিইও হলেন ডুয়ান ইয়ংপিং, শেন ওয়েই।

Vivo কি একটি চীনা কোম্পানি?

হ্যাঁ, Vivo হল একটি চীনা কোম্পানি।

Vivo কি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বিক্রি হয়?

হ্যাঁ, Vivo এর স্মার্টফোনগুলি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে উপলব্ধ।

Vivo কি কোরিয়ান ব্র্যান্ড?

না, তবে কোরিয়াতে ভিভোর বিক্রয় এবং পরিষেবা ইউনিট রয়েছে।

Vivo কি একটি ভাল কোম্পানি?

হ্যাঁ, Vivo সাশ্রয়ী, টেকসই, টেকসই এবং নির্ভরযোগ্য স্মার্টফোন তৈরি করে।

কোনটি ভাল Oppo বা Vivo?

স্মার্টফোন দুটিই ভালো, কিন্তু পারফরম্যান্স এবং কিছু পয়েন্টে Oppo Vivo থেকে ভালো।

Vivo বা Realme কোনটি ভালো?

স্মার্টফোন দুটিই ভালো, তবে কিছু ক্ষেত্রে Realme-এর আরও বৈশিষ্ট্য রয়েছে।

Vivo বা Samsung কোনটি ভালো?

বাজেট স্মার্টফোনের মধ্যে Vivo ভালো; তবে Samsung এর মান আছে।

Vivo V21 Pro এর দাম কত?

ভারতে Vivo V21 Pro এর আনুমানিক মূল্য 32,999 টাকা।

কোন Vivo তে 5G আছে?

Vivo Z6 হল প্রথম Vivo ফোন যাতে 5G আছে।

15000 এর নিচে ভিভো ক্যামেরা সহ কোন ফোনটি সেরা?

1. Vivo Z1 Pro

2. Vivo Y20G (Vivo Y20G)

3. Vivo Y20

4. Vivo Y20A (Vivo Y20A)

5. Vivo Y20i

6. Vivo Y30 (Vivo Y30)

7. Vivo Y17

8. Vivo Y15 (Vivo Y15)

9. Vivo Y12

উপসংহার

বন্ধুরা, আমরা এখানে তথ্য দিয়েছি যে — Vivo কোন দেশের কোম্পানি? এবং Vivo কোম্পানির মালিক কে? আশা করি Vivo মোবাইল সম্পর্কে এই লেখাটি পড়ে আপনি অনেক কিছু জানতে পেরেছেন। আপনি যদি পোস্টটি পছন্দ করেন, তাহলে এই সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here